শিরোনাম

চট্টগ্রামে পাহাড় ও দেয়াল ধসে শিশুসহ নিহত ৪

মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম: বিশেষ প্রতিনিধি:

টানা বৃষ্টিতে চট্টগ্রামে পাহাড় ও দেয়াল ধসে শিশুসহ চারজন নিহত হয়েছেন। নিহতের মধ্যে তিনজন একই পরিবারের সদস্য বলে জানা গেছে।

শনিবার (১৩ অক্টোবর) দিবাগত রাতে নগরীর আকবর শাহ থানার পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনির পাহাড় ধসে একই পরিবারের তিনজন ও বায়েজিদ থানার রহমাননগর এলাকায় দেয়াল ধসে একজন নিহত হয়েছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের সহকারি পরিচালক মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন ভুইয়া।

তিনি বলেন, প্রবল বৃষ্টিতে পাহাড়ের পাদদেশে দুটি বাড়ি ধসে পড়ে। এতে নূর জাহান, তার মেয়ে নূর বানু ও নূর জাহানের মা জহুরা খাতুন মারা যান।

নূর জাহান আর নূর বানুর লাশ ভোরেই উদ্ধার করা হয়েছে। আজ সকাল সাড়ে ৮টায় জহুরা খাতুনের লাশ উদ্ধার করা হয়। জহুরা লক্ষ্মীপুর থেকে চট্টগ্রামে মেয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন।

নূর জাহানের স্বামীর নাম নূর মোহাম্মদ। তাদের এক ছেলে ও পাঁচ মেয়ে। নূর বানু সবার ছোট। তার বয়স আড়াই বছর।

নূর মোহাম্মদ বলেন, গতকাল রাতে বৃষ্টির মধ্যে তিনি ঘরের মালামাল সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। কিছু মালামাল ও তিন মেয়েকে তিনি সরিয়ে অন্য জায়গায় রেখে আসেন। সব শেষে ঘরের টিভিসহ অন্যান্য মালামাল ও স্ত্রী-শাশুড়িকে নিয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু সে সুযোগ তিনি আর পাননি। শেষবার এসে দেখেন ঘরের মধ্যে পাহাড় ধসে পড়েছে।

অন্যদিকে বায়েজিদ এলাকায় রহমাননগরে দেয়াল ধসে নুরুল আলম নান্টু নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। তিনি পেশায় একজন রিকশাচালক ছিলেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

নিহতদের প্রত্যেককে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা করে সহায়তা করা হয়েছে বলে জানান চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস।

তিনি বার্তা২৪.কমকে  বলেন, ‘আমরা গত কয়েক দিন ধরেই পাহাড় থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিচ্ছিলাম। মাইকিং করা হয়েছে। পুলিশ দিয়ে তাদের সরানো হয়েছে। তবু কেউ কেউ জোর করে রয়ে গেছে। পাহাড় কেটে বসতি স্থাপন করার জন্য এলাকার প্রভাবশালীরা দায়ী। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

স্থানীয়রা জানান, ওই ফিরোজ শাহ কলোনির পাহাড়টি কনকর্ড গ্রুপের নিয়ন্ত্রণাধীন। তাঁরাও চেষ্টা করেছেন লোকজনকে সরিয়ে নিতে। কিন্তু অনেকেই বাড়ি ছেড়ে যেতে চাননি।


Print pagePDF pageEmail page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

See In Your Language