Templates by BIGtheme NET
শিরোনাম

জাবি ক্যাম্পাসে প্রজাপতি মেলা অনুষ্ঠিত

নাফিউর রহমান ইমন,জাবি ক্যাম্পাস প্রতিনিধিঃ  “উড়লে আকাশে প্রজাপতি, প্রকৃতি পায় নতুন গতি” এই স্লোগানকে সামনে রেখে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে নবম বারের মতো উদযাপন করা হলো প্রজাপতি মেলা ২০১৮।
২০১০ সালে প্রথম প্রজাপতি মেলা অনুষ্ঠিত হয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেই ধারাবাহিকতায় এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি।ব্যতিক্রমধর্মী এই মেলার আয়োজন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান অনুষদের প্রানিবিজ্ঞান বিভাগের কীটতত্ত্ব শাখা।

শুক্রবার(২ নভেম্বর)বেলা ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান মিলনায়তনে বেলুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘প্রজাপতি মেলায় যে এত লোক আসে এবং সারাদিন আনন্দে কাটায় এটি চমৎকার অনুভূতি দিয়ে যায়। আমাদের ক্যাম্পাসে অনেক ঘটনাই ঘটে সেগুলোর খবর আসে না কিন্তু প্রজাপতির খবর ছড়িয়ে যায়। প্রজাপতি খেলার সাথী। বাচ্চারা দৌড়ে দৌড়ে প্রজাপতির পেছন পেছন যায়, রং দেখে। প্রজাপতির ছবি আঁকতে চায়। এর মাধ্যমেই সবাই প্রজাপতিকে চেনে।’

অন্যান্যদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) মো. নুরুল আলম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক, মেলার আহ্বায়ক প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মো. মনোয়ার হোসেন, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) রহিমা কানিজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ব্যস্ততা মানুষকে কাজের প্রতি উদাসীন করে দেয়।স্বভাবতই মানুষ চায় একটু প্রশান্তি ছোঁয়া।তাই কর্মব্যস্ত নগরীর মানুষ ছুটে আসে বর্নিল এই মেলায়।গাছ গাছালিতে ঘেরা ক্যাম্পাসে সর্বত্রই প্রজাপতি পাওয়া যায়।লাল, নীল,হলুদ,কালো ছাড়াও হরেক রকমের প্রজাপতি উড়ে বেড়ায় ফুলে ফুলে।গবেষকেরা মনে করেন বাংলাদেশে ৩০০ প্রজাতির মত প্রজাপতি আছে।তবে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ১১৫ প্রজাতির প্রজাপতি আছে বলে দাবি করা হয়।হিসেবের গরমিল থাকলেও ক্যাম্পাসে প্রজাপতি যে নেহাত কম নয় তা মেলা ঘুরে দেখলেই বোঝা যায়।

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও প্রজাপতি মেলায় থাকছে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, শিশু-কিশোরদের জন্য প্রজাপতির ছবি আঁকা প্রতিযোগিতা, প্রজাপতির আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও প্রতিযোগিতা, জীবন্ত প্রজাপতির হাট দর্শন, প্রজাপতির আদলে ঘুড়ি উড়ানো প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি চেনা প্রতিযোগিতা, প্রজাপতি বিষয়ক প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী এবং সবশেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান।

উল্লেখ্য,মেলায় সার্বিক সহযোগিতা করে প্রকৃতি ও জীবন, এনসিআই,প্রাণিবিদ্যা বিভাগ ও আইইউসিএন।


Print pagePDF pageEmail page
Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*