শিরোনাম

বান্দরবানে মাদকদ্রব্য বিক্রয় ও অসামাজিক কার্যক্রমের প্রতিবাদ করায় পিতা-পুত্রের উপর সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ

শহীদুল ইসলাম: বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি:
বান্দরবান পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড কালাঘাটা বড়ুয়ারটেক এলাকায় বসবাস কারী গাড়ী চালক মোঃ জসিম উদ্দিন (৫২),ও তার পুত্র মোঃ কপিল উদ্দীন(২৪),পিতা ও পুত্র উপর সন্ত্রাসী কায়দায় হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মোঃ কপিল উদ্দীন প্রতিবেদককে জানান, আমি পেশায় একজন টমটম গাড়ী চালক,গত ২০সেপ্টেম্বর-১৮ বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক সাড়ে ১০টার দিকে আমি সারাদিন গাড়ী চালানোর পর আমার বাসায় যাওয়ার পথে বড়ুয়ার টেক পাড়ায় রোয়ংছড়ি রাস্তার মাথায় মসজিদের সামনে পৌছালে ঐ এলাকার মোঃ বেলাল (২৩),মোঃ হেলাল(২৫) উভয় পিতা- মোঃ বশর। মোঃ ফিরোজ আলম(২৩),পিতা ভান্ডারী,মোঃ বোরহান উদ্দিন(১৯),পিতা আবুল হোসেন সাং-কালাঘাটা ৩নং ওয়ার্ড বড়–য়ার টেক এলাকা,থানা বান্দরবান ,জেলা বান্দরবান। তারা চার জনে মিলে হঠাৎ আমার পথ রোধ করে আমার উপর সন্ত্রাসী কায়দায় দেশীয় অস্ত্র রড,লাঠি সোঠা দিয়ে আমাকে আঘাত করে এর পর আমাকে কিল,ঘূষি লাথি মারে, আমার মাথায় বুকে মুখে কানে আঘাত করতে থাকে,ঐ সময় আমার পিতা মটর মটর সাইকেল করে বাসায় যাওয়ার পথে লাইটের আলোতে ঐ ঘটনা দেখে আমাকে তাদেও হাত থেকে বাচাতে গেলে তারা আমার পিতার উপর লাঠি দিয়ে প্রচন্ড ভাবে আঘাত করে যার কারণে আমার পিতার দান হাতের হাড় ভেঙ্গে যায়। পরবর্তীতে আশে-পাশের লোকজন আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে চলে যায়। এলাকার লোকজন ও আমার পরিবারের সদস্যরা আমাদেরকে হাসাপাতে নিয়ে আসে,আমাকে হাসপাতাল হতে প্রাথমিক চিকিসা করে ছাড় পত্র দেয়, আমার পিতার অবস্থা পর্যালোচনা করে ডাক্তার আমার পিতাকে হাপতালে ইমারজেন্সি ভাবে ভর্তি করে নেন। প্রতিবেদক ঘঁটনার কারণ জানতে চাইলে কপিল উদ্দীন জানান, এলাকায় শুনেছি বেলাল নাকি ইয়াবা ট্যাবলেটের ব্যবসা করছে, কিছুদিন পুর্বে আমি বেলাল কে ডেকে বল্লাম,এখানো মাদকদ্রব্য ইয়াবা নেশা জাতীয় জিনিষ ক্রয় বিক্রয় করা যাবে না,এলাকার যুব সমাজকে আমাদের সকলের উচিত ভাল কাজের দিকে ধাবিত করা। এর কয়েকদিন পর আমার উপর ও আমার পিতার উপর সন্ত্রাসী কায়দায় দেশীয় অস্ত্র রড,লাঠি সোঠা দিয়ে হামলা করে। ঘটনার দিন রাতে ২০-০৯-২০১৮তারিখে আমাদের জান মালের রক্ষার্থে বান্দরবান সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করি। উল্লেখ্য, বান্দরবান সদর থানায় ইতিপুর্বে মোঃ বেলাল এর বিরোদ্ধে নারী নির্যাত,সন্ত্রাসী হামলা ও ইয়াবা হিসেবে বিক্রেতা মামলা চলমান রয়েছে। ফিরোজ আলম এর বিরুদ্ধে ও ডাকাতি মামলা ও বন বিভাগের মামলা চলমান রয়েছে। কপিল উদ্দিন আরো বলেন,এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা আমাদেরকে হত্যার উদ্যোশ্যে হামলা করা হয়েছিল,আমি এর সঠিক বিচার চাই,এই হামলার বিচার না হলে সন্ত্রাসীরা আরো বেশী বেপড়–য়া হয়ে পড়বে,সমাজে সৃংখলা নষ্ট হবে। আমার পিতা থানায় অভিযোগ দায়ের করার পর থেকে সন্ত্রাসীরা থানা থেকে অভিযোগ তুলে নেয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে আমি এবং আমার পরিবার নিরাপত্তা হিনতায় ভোগছি,প্রশাসনের নিকট আমাদের আকুল আবেদন অপারাধীদের আইনের আওতায় এনে বিচারের মাধ্যমে সুষ্ঠ সমাধান করা হউক,তাহলে দেশে আইনের সু-শাসন নিশ্চিত হবে।


Print pagePDF pageEmail page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

See In Your Language