শিরোনাম

বান্দরবান বনরূপা এলাকাবাসী ও যুব কল্যাণ পরিষদের আয়োজনে বার্ষিক তাফসীরুল কোরআন মাহ্ফিল

মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম:
বান্দরবান বনরূপা এলাকাবাসী ও যুব কল্যাণ পরিষদের আয়োজনে বার্ষিক তাফসিরুল কোরআন মাহফিল-২০২১ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৬মার্চ মঙ্গলবার বাদে আছর হইতে রাত সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এই মাহ্ফিল চলে। বান্দরবান বনরূপা জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে মাহ্ফিলের আয়োজন করা হয়। মাহ্ফিলে প্রধান মুফাসসির হিসেবে দিক নির্দেশনামূলক তাফসীর করেন কক্সবাজার চকরিয়া শাহারবিল আনওয়ারুল উলুম কামিল(এম.এ) মাদ্রসার উপাধ্যক্ষ হযরত মাওলনা মুহাম্মদ শফিউল হক (জিহাদী)। বান্দরবান ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার প্রভাষক ও বনরূপা জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আব্দুল আউয়াল এর সভাপতিত্বে মাহফিলে বিশেষ মুফাসসির হিসেবে তাকরীর পেশ করেন বান্দরবান জজ কোট জামে মসজিদের খতিব হাফেজ ক্বারী মাওলানা মুহাম্মদ মুজিবুল হক। এছাড়াও মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান মডেল একাডেমীর অধ্যক্ষ মাওলানা রেজাউল করিম সহ স্থানীয় অন্যান্য ওলায়ে একরাম গণ। মাহফিলে আমন্ত্রিত অতিথির মধ্যে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান পৌরসভার জননন্দিত নব নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য মোজাম্মেল হক বাহাদুর,বনরূপা ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৌরভ দাশ শেখর,মাহফিলে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন মাহফিল পরিচালনা কমিটির আহবায়ক মো: মহিউদ্দীন। এছাড়াও মাহ্ফিলে সার্বিক সহযোগিতা ও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন মাহ্ফিল বাস্তবায়ন কমিটির অন্যতম নেতা ও বনরূপা জামে মসজিদ ও তাহফিজুল কোরআন মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি সমাজ সেবক আব্দুল মান্নান, বনরূপা জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ইলিয়াছ কোম্পানী, মাহফিল পরিচালনা কমিটির সদস্য মো: নিজাম উদ্দীন’সহ ইসলাম প্রিয় যুবকের দল। মাহফিলে বক্তারা বলেন,পবিত্র কোরআন হচ্ছে সমগ্র মানব জাতির জন্য মাহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের পক্ষ থেকে পাঠানো একটি সংবিধান,এই কোরআনের মধ্যে ইসলাম যে একটি পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা তা প্রকাশ করেছেন মাহান আল্লাহ,মহান আল্লাহ তাঁর প্রিয় রাসূল হযরত মুহাম্মদ(সাঃ) এর উপর পবিত্র কোরআন নাজিল করেছেন,রাসূল(সাঃ)তাঁর উপর অর্পিত দায়িত্ব পরিপূর্ণ ভাবে পালন করেছেন,তিনি তাঁর উম্মতের জন্য বহু কষ্ঠ নির্যাতন সহ্য করেছেন,একমাত্র ইসলাম ধর্ম কায়েম করার জন্য। ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম। আল্লাহর হুকুম পালন না করার কারনে মুসলমানদের মাঝে মধ্যে আল্লাহ পরিক্ষা করে থাকেন, বান্দা তার পাপ থেকে ফিরে এসে তওবা করলে মহান আল্লাহ সেই আজাব থেকে মুক্ত করে দেন। যারা মাহফিলের আয়োজন করেছেন এবং যারা সার্বিক সহযোগিতা করেছেন তাদের সকলের জন্য র্সবপরি দেশ-জাতি তথা সমগ্র মানব জাতির কল্যাণে বিশেষ মোনাজাত ও দোয়া করা হয়।


Print pagePDF pageEmail page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

See In Your Language