শিরোনাম

রামগঞ্জে জ্বীনের ভয়ে বাড়ী ছাড়া দুই পরিবার,শেষমেশ রক্ষা হলো না,আগুনে পুড়ে সব ছাই

কাজী মহিউদ্দিন মঈনঃ-লক্ষ্মীপুরে জ্বীনের ভয়ে দীর্ঘ ৬ মাস যাবৎ পালিয়ে বেড়িয়েও শেষ রক্ষা হলো না রামগঞ্জ উপজেলার ৪নং ইছাপুর ইউনিয়নের ৪নং শিবপুর গ্রামের প্রবাসী জাফর আহম্মেদ রফিক ও কৃষক লেদু মিয়ার। আগুনে পুড়ে সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছে দুইটি পরিবার। বুধবার, ৩ মার্চ ২০২১ সন্ধা ৭টায় শিবপুর গ্রামের আগা খন্দকার বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। আগুনে প্রায় ৩০লক্ষ টাকার মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে বলে জানালেন বাড়ীর মালিক লেদু মিয়া। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান, রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাপ্তি চাকমা, রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা দিলিপ দে ও সহকারী প্রকৌশলী জুয়েল রানা, উপজেলা ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা। এলাকাবাসী ও ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের লোকজন জানান, গত ৬ মাস থেকে শিবপুর গ্রামের বাহারাইন প্রবাসী জাফর আহম্মেদ রফিক ও বড় ভাই লেদু মিয়ার টিনশেড বসতঘরে কয়েকদিন পর পর হটাৎ আগুন লাগে। ঘরের ভিতরে একেকদিন একেক স্থানে অজ্ঞাত কারনে আগুন লেগে যায়। আবার আগুন ছাড়া ঘরের ছালায় ধোঁয়া দেখা দেয়। অজ্ঞাত কারনে হাওয়া হয়ে যায় মোবাইল, টেলিভিশনসহ মূল্যবান মালামাল। এসব ঘটনায় পরিবারের লোকজন বাধ্য হয়ে ঘর খালি করে চলে আসেন রামগঞ্জ শহরে। বাসা ভাড়া নিয়ে বসত করে পরিবারের সদস্যরা। বিষয়টি নিয়ে পুরো উপজেলায় সাধারণ মানুষের মাঝে দেখা দেয় চরম কৌতুহল। বাড়ীর নাম পরিবর্তন হয়ে “আগুনের বাড়ী” নামে আখ্যায়িত করে এলাকাবাসী। বুধবার মাগরিবের নামাজের সামান্য পর হঠাৎ ঘরটিতে আগুন লেগে যায়। আগুনের খবর পেয়ে সাথে সাথে ঘটনাস্থলে দ্রুত রামগঞ্জ ফায়ার ষ্টেশনের একটি ইউনিট গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা চালানোর আগেই বসতঘরসহ ঘরের সমস্ত মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। বাড়ীর মালিক লেদু মিয়া জানান, গত কয়েকমাস থেকে এ অবস্থা চলতে থাকলে বিভিন্ন স্থান থেকে কবিরাজ-বৈদ্যসহ কোরআনখানি তেলোয়াত করা হলেও আগুনের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। আগুনে আমার প্রায় ৩০ লক্ষাধিক টাকার মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমার পরিবার পথের ফকির হয়ে গেছে। সত্তোরর্ধো একজন ব্যক্তি জানান, গত কয়েকমাস থেকে ঐ বাড়ীটির বিভিন্ন জায়গায় অজ্ঞাত কারনে আগুন লেগে যায়। লোকমুখে শুনেছি, ঐ পরিবারের কোন একজন সদস্য গুপ্তধন পেয়েছে। প্রায় তাদেরকে স্বপ্ন দেখাচ্ছে গুপ্তধন ফেরত দিতে। কিন্তু তারা সম্প্রতি আগুনের হাত থেকে রক্ষা পেতে এলাকার লোকজনের মাঝে গরু জবাই করে খাওয়ালেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। আজ পুরো ঘর ও মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এবার যদি তারা রক্ষা পায়। শিবপুর ইউপি সদস্য আবু তাহের জানান, আল্লাহপাক ভালো বলতে পারবেন কেন এভাবে আগুন ধরছে। গত কয়েকদিন থেকে ঐ ঘরের আশেপাশে বিভিন্ন স্থানে আগুন দেখা দেয়। বাড়ীর লোকজন দিনের বেলায়ও ভয়ে বাড়ীটির ধারেকাছে খুব একটা ঘেঁষে না। রামগঞ্জ ফায়ার স্টেশন লিডার আবদুল হাশিম জানান, আমরা ধারনা করছি বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত। রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাপ্তি চাকমা ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে জানান, বুধবার দুপুরে আমি ঐ বাড়ীতে কয়েকদিন পর পর আগুন লাগার ঘটনাটি শুনেছি। আধুনিকতার এ যুগে এসব বিশ্বাস করা সম্ভব না। কিন্তু কয়েকঘন্টার ব্যবধানে বুধবার সন্ধার পরেই আগুনে ঐ পরিবারের এতবড় ক্ষতি কোনভাবেই ব্যখ্যা দেয়া যাচ্ছে না। সরকারীভাবে আমরা উক্ত পরিবারকে বৃহস্পতিবার ঢেউটিনসহ শুকনো খাবার প্রদান করবো।


Print pagePDF pageEmail page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

See In Your Language