Templates by BIGtheme NET
শিরোনাম

সরকার চাইলে যে কোনো দিন আমরা আলোচনায় বসতে প্রস্তুত

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীকে সংলাপে বসার আহ্বান জানিয়েছিলাম। আজকে জানতে পারলাম তিনি আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী সংলাপে বসার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আমরা এ বিষয়টিকে স্বাগত জানাই।

তিনি বলেন, সরকার চাইলে যে কোনো দিন আমরা আলোচনায় বসতে প্রস্তুত।

সোমবার মতিঝিলে মওদুদ আহমেদের নিজ কার্যালয়ে ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির এক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

মওদুদ আহমদ বলেন, আনুষ্ঠানিকভাবে আমাদেরকে এখনও কবে ও কোথায় সংলাপ হবে তা জানানো হয়নি। এগুলো জানলে জানাব।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ও জেএসডির সভাপতি আসম আব্দুর রব বলেন, প্রধানমন্ত্রী যদি কালকেই আমাদের সংলাপের জন্য ডাকেন আমরা অবশ্যই তার ডাকে সাড়া দেব। প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতিকে তো আর অসম্মান করা যায় না।

এদিকে সংলাপের বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাড়া দেয়ায় মঙ্গলবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা নির্বাচন কমিশনে যাচ্ছেন না বলে জানান বিএনপি নেতা মওদুদ আহমেদ।

তিনি বলেন, মঙ্গলবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের নির্বাচন কমিশনে যাওয়ার কথা ছিল। যেহেতু প্রধানমন্ত্রী সংলাপের জন্য সাড়া দিয়েছেন তাই আমরা এ মুহূর্তে কমিশনে যাচ্ছি না। কারণ সংলাপে তো নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনসহ বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনা হবে।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা প্রসঙ্গে মওদুদ আহমদ বলেন, খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে রায় দেয়া হয়েছে। যা ন্যায়বিচারের পরিপন্থী। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই। আমরা আশা করি সরকার খালেদা জিয়ার জামিনের সব বাধা দূর করে তাকে মুক্তি দেবে। এ মামলা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

৪৮ ঘণ্টার পরিবহন ধর্মঘটের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সরকারি মন্ত্রীদের মদদে পরিবহন ধর্মঘটের নামে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করা হয়েছে। অবর্ণনীয় দুর্ভোগ সৃষ্টি করা হয়েছে। আমরা তার তীব্র নিন্দা জানাই।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, ডাকসুর সাবেক ভিপি ও ঐক্যফ্রন্টের নেতা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মনসুর মন্টু প্রমুখ।

সোমবার বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপে বসবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, সংলাপের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দরজা সবার জন্য সব সময় খোলা। পার্টির পক্ষ থেকে আমরা জানিয়ে দিচ্ছি এই সংলাপে আমরা সম্মত। খুব শীঘ্রই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে এই সংলাপের স্থান ও সময় জানিয়ে দেয়া হবে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ১১ দফা কর্মসূচি ও ৭ দফা দাবি মেনে নেয়া হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, কোন দাবি মেনে নেয়া হবে আর কোনটা মেনে নেয়া হবে না আমরা এখন এ বিষয়ে কিছুই বলতে চাইনা, সংলাপে সব বিষয়ে আলোচনা হবে।

এর আগে, গতকাল রোববার প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এবং দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে সংলাপে বসার জন্য চিঠি দেন গণফোরাম সভাপতি ও বিশিষ্ট আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

সাত দফা দাবি এবং ১১ দফা লক্ষ্য সম্বলিত চিঠিটি গ্রহণ করেন আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দুই নেতা গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু ও জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহম্মেদ চিঠিটি পৌঁছে দেন।


Print pagePDF pageEmail page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

See In Your Language