Templates by BIGtheme NET
শিরোনাম
খানসামায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের মাঝে ত্রাণ মন্ত্রী

খানসামায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের মাঝে ত্রাণ মন্ত্রী

এসকে.এম. তারিকুল ইসলাম চৌধুরী, খানসামা (দিনাজপুর) সংবাদদাতা।
দিনাজপুর জেলার খানসামা উপজেলা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে হেলিকপ্টার যোগে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০ টার সময় অবতরণ করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোঃ মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বীর বিক্রম, এমপি। তিনি উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করেন, পরে ৪নং খামারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে আয়োজিত জনসভায় ১শ টন চাল ও নগদ ৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দের ঘোষনা দেন। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ সহিদুজ্জামান শাহ্, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সাজেবুর রহমান, সকল ইউপি চেয়ারম্যানগণ ও দলীয় নেতৃবৃন্দ। পরে ক্ষতিগ্রস্থ বিভিন্ন বিষয়ের তথ্যাদি ত্রাণ মন্ত্রীকে অবহিত করা হয়, সেগুলো হলো: বন্যায় খানসামা উপজেলার ১শ ২৫ বর্গকিলোমিটার গ্রামাঞ্চলের মানুষজনের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির মধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিস থেকে ক্ষয়ক্ষতির বিবরণ জানা গেছে, ১২ হাজার ৯শ ২৫ হেক্টর রোপা আমন ক্ষেতের মধ্যে বন্যায় তলিয়ে গেছে ১০ হাজার ৩শ হেক্টর, সম্পূর্ণভাবে ক্ষতি হয়েছে ৪শ ৫০ হেক্টর, আংশিক ক্ষতি হয়েছে ১০ হাজার ১শ ২৮ হেক্টর। এলজিএডি’র পাঁকা সড়ক ২.০০০ প্রতি কিঃমিঃ গড় ক্ষতি ৭০ লক্ষ টাকা, আংশিক ক্ষতি ৪৩.৫০০ প্রতি কিঃমিঃ ৭ লক্ষ টাকা, কাঁচা সড়ক ৭.০০ কিঃমিঃ, আংশিক ১১৩.০০০ প্রতি কিঃমিঃ গড় ক্ষতি ১ লক্ষ টাকা। ক্ষতিগ্রস্থ ব্রীজ সম্পূর্ণ ১৬টি, আংশিক ২৩টি। ক্ষতিগ্রস্থ কালভার্ট সম্পূর্ণ ৬১টি, আংশিক ১৪০টি। ঘর-বাড়ির মধ্যে পাঁকা আংশিক ২৪০টি, আধা পাঁকা ১৫৫টি এবং কাঁচা ঘর ৪ হাজারটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয় ২৩টি, উচ্চ বিদ্যালয় ৯টি, কলেজ ১টি ও মাদ্রাসা ৯টি। ক্ষতিগ্রস্থ নলকূপ অগভীর সম্পূর্ণ ৩৮২টি, আংশিক ৬৮৯টি। টিউবওয়েল সম্পূর্ণ ৭ হাজার ৫শ ৫২টি, আংশিক ১১ হাজার ৩শ ২৭টি। ক্ষতিগ্রস্থ স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা সম্পূর্ণ ২০ হাজার ২শ ১১টি, আংশিক ১১ হাজার ৩শ ৬৮টি ও পুকুর ৪ হাজারটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ইতোমধ্যে ৬টি ইউনিয়নেই ত্রাণের চাল প্রায় ১২ হাজার পরিবারের মধ্যে ৫ কেজি হারে ৬০ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। এ বন্যায় খানসামাবাসীর যে ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে তা পূরণ হতে প্রায় এক যুগেরও বেশী সময় লেগে যাবে।


Print pagePDF pageEmail page
Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*