Templates by BIGtheme NET
শিরোনাম

আওয়ামী লীগ নিয়ে আসে উন্নয়ন আর বিএনপি-জামায়াত উপহার দেয় লাশ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগ আপনাদের জন্য উন্নয়ন নিয়ে আসে আর বিএনপি-জামায়াত উপহার দেয় লাশ।

বৃহস্পতিবার বিকালে রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে আওয়ামী লীগের জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াতের সময় রাজশাহী ছিল সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের এলাকা। তারা তৈরি করেছিল বাংলা ভাই। বিএনপি-জামায়াতের সময় বিভিন্ন হামলার শিকার হয়েছে রাজশাহীর মানুষ।

তিনি বলেন, বিএনপি চোরের জন্য আন্দোলন করছে, খালেদা জিয়ার দুই ছেলের দুর্নীতিও এখন প্রমাণিত।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির আমলে মানুষ অভয়ে চলতে পারত না, ঘর থেকে বের হতে পারত না। রাজশাহীকে তারা ত্রাসের নগরীতে পরিণত করেছিল। তারা দেশের উন্নয়ন করতে পারেনি, করেছে বোমাবাজি।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার সাজার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া গ্রেফতার হয়েছে। কারণ, ৯১ সালে এতিমখানা তৈরি করবে বলে বিদেশ থেকে টাকা এনেছে। কিন্তু এতিমখানা কই? কেউ ঠিকানা জানে না।’

শেখ হাসিনা বলেন, সেই টাকা লুটপাট করে খেয়েছে। এখন বলে টাকা তো আছে, টাকা তো বেড়েছে। কিন্তু এই টাকা কে ভোগ করেছে?’।

এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপি নেতারা আন্দোলন করে। কিসের আন্দোলন? টাকা চুরি করে নেত্রী জেলে গেছে। আন্দোলন চোরের জন্য? ‘এতিমের টাকা চুরি করে খেয়েছে। ২৭ বছর এতিমের ভাগ এতিমকে দিতে পারেনি। সে টাকা নিজের কাছে রেখে গিয়েছে।’

বিএনপি সরকার আমলে বিএনপি-জামায়াতের ক্যাডাররা আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীদের নির্মমভাবে হত্যা করে। শিবির ক্যাডাররা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হাত-পায়ের রগ কেটে হত্যা করে। বিএনপির সন্ত্রাসীদের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য কীভাবে মানুষ কষ্ট করেছে আমরা দেখেছি। এই রাজশাহীতে তারা আপনাদের দিয়েছিল লাশের উপহার।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীর ২৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

চলতি মেয়াদে এটি প্রধানমন্ত্রীর রাজশাহীতে দ্বিতীয় সফর।

এর আগে রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রী যে ২০টি উন্নয়ন প্রকল্পগুলো উদ্বোধন করেছেন সেগুলো হলো- ১৪ কোটি ৬৯ লাখ টাকা ব্যয়ে পুঠিয়ায় বারনই নদীতে ড্যাম নির্মাণ, ২ কোটি ৮৭ লাখ ৫৬ হাজার টাকা ব্যয়ে রাজশাহী (নর্থ) ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন নির্মাণ, ১ কোটি ৫১ লাখ ৯৮ হাজার টাকা ব্যয়ে নওহাটা ফায়ার স্টেশন নির্মাণ, ২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সার্ভে ইনস্টিটিউট নির্মাণ।

এছাড়া বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজের ৫তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, শহীদ কামারুজ্জামান সরকারি ডিগ্রি কলেজের ৫তলা একডেমিক ভবন নির্মাণ, দামকুড়া হাট কলেজের ৪তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, আড়ানী ডিগ্রি কলেজের ৪তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, তানোর আব্দুল করিম সরকার ডিগ্রি কলেজের ৪তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, বাগমারা কলেজের ৪তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, বিড়ালদহ কলেজের ৪তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, রাজশাহী মহানগরীর নবনির্মিত ৮টি থানা ও গোদাগাড়ী উপজেলায় প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।


Print pagePDF pageEmail page
Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*