Templates by BIGtheme NET
শিরোনাম

গাজায় ইসরাইলি সেনাদের গুলিতে পাঁচ ফিলিস্তিনি নিহত

ফিলিস্তিনের গাজায় ভূমি দিবসের বিক্ষোভে ইসরাইলি সেনাদের গুলিতে অন্তত পাঁচ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় শতাধিক ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন। ইসরাইলি সংবাদমাধ্যম ‘টাইমস অব ইসরাইল’ আহতের সংখ্যা তিন শতাধিক বলে জানিয়েছে। খবর আল জাজিরার।

ফিলিস্তিনি জনগণকে তাদের ভূমি থেকে বিতাড়নের ৭০তম বার্ষিকী ও ৪২তম ভূমি দিবস উপলক্ষে শুক্রবার গাজা ও এর আশপাশের এলাকার মানুষ বিক্ষোভ করছেন। বিক্ষোভে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি পতাকা হাতে বিভিন্ন চত্বর ও রাস্তায় সমবেত হয়।

দ্য গ্রেট রিটার্ন মার্চ’ নামে এই বিক্ষোভটি প্রতি বছর আয়োজন করা হয়। কিন্তু এবার এতে একটু ভিন্নতা আনা হয়। গাজা নিয়ন্ত্রণকারী হামাস আন্দোলনসহ ফিলিস্তিনিদের বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দল প্রতিবাদের প্রতি সমর্থন জানায়।

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, শুক্রবার গাজা-ইসরাইল সীমান্তের অন্তত ছয়টি স্থানে বিক্ষোভ করে ফিলিস্তিনিরা। গাজা সীমান্তে শতাধিক শার্প শুটার (লক্ষ্যভেদ করতে দক্ষ সেনা) মোতায়েন করে ইসরাইল।

শুক্রবার সকালে খান ইউনিস শহরে এক ফিলিস্তিনি কৃষককে গুলি করে হত্যা করে ইসরাইলি প্রতিরক্ষা বাহিনী। এছাড়া মোহাম্মদ নজরকে, আমিন মোহাম্মদ, মোহাম্মদ আবু উমর ওয়াহিদ নামের তিন ফিলিস্তিনি ও আহমেদ নামের এক শিশুকে রাফাহ এলাকা গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়।

ইসরাইলি ট্যাংকের গোলায় আরেক ব্যক্তি আহত হয়। বিক্ষোভের সময় মোট পাঁচ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে আল জাজিরা।

হামাস নেতারা জানান, পুরো ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ফেরত পাওয়ার আগ পর্যন্ত ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংকটের কোনও সমাধান তারা মানবেন না এবং সমঝোতায় রাজি হবেন না।

তিনি বলেন, এই বিক্ষোভ ইসরাইলি দখল ও অবরোধের বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনি জনগণ যে ঐক্যবদ্ধ তা প্রমাণ করেছে। যে কোনও ধরনের সন্দেহজনক চুক্তি ও সমঝোতা রুখে দাঁড়াবে এই ঐক্যবদ্ধ ফিলিস্তিনিরা।

বিক্ষোভ দমনে ইসরাইলের সেনাবাহিনীর সীমান্ত বেষ্টনীর কাছাকাছি এলাকাকে সংরক্ষিত সামরিক অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করেছে। শুক্রবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত অন্তত ১৪ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে ইসরাইলি প্রতিরক্ষা বাহিনী।

দখলদার ইসরাইলি সেনাবাহিনীর চিফ অব স্টাফ লে. জেনারেল গ্যাদি এইজেনকোট বলেছেন, ইসরাইলের বাছাই করা ১০০ স্নাইপারকে গাজা সীমান্তে মোতায়েন করা হয়েছে। ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারীরা যাতে সীমান্তের কাছাকাছি যেতে না পারে সে লক্ষ্যে এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।


Print pagePDF pageEmail page
Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*